ORICEF-INJECTION

0
572

 অরিসেফ ® 
সেফট্রায়াক্সন ইউএসপি 

buttock injection,im injection,injection,how to injection,how to calcium injection,how to injection bangla,injection on buttock,ORICEF-INJECTION
চিত্র:-অরিসেফ-ceftriaxone injection bangla

ORICEF-INJECTION-how to injection:-শিরাপথে বা মাংসপেশীতে ব্যবহার

প্রাধান্য আনেক সময় বিস্তৃত সেফালোসপপারিন এন্টি বায়োটিক।প্রয়জনীয় উপাদান

২৫০ মি.গ্রা . ইন্ট্রামাসকুলার / ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন

সােডিয়াম ইউএসপি ২৯৮.২৩ মি.গ্রা . সমতুল্য ২৫০ মি.গ্রা . শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন আছে ।

৫০০ মি.গ্রা . ইট্রামাসকুলার / ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন

সােডিয়াম ইউএসপি ৫৯৬.৪৬ মি.গ্রা . সমতুল্য ৫০০ মি.গ্রা . শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন

আছে । ১ গ্রাম ইন্দ্রামাসকুলাকুইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন

সােডিয়াম ইউএসপি ১.১৯৩ গ্রাম সমতুল্য ১ গ্রাম শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন আছে । ২ গ্রাম

ইন্ট্রাভেনাস ইনফিউশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ২.৩৮৬

গ্রাম সমতুল্য ২ গ্রাম শুষ্ক সেফট্রিায়াঙ্গন আছে।

ফার্মাকোলজি

ব্যাকটেরিয়ার কোষ আবরণী সংশ্লেষন প্রক্রিয়ায় বাধাদানের মাধ্যমে ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস
করে। সেফট্রায়াক্সন দেহের বাইরে ( In – vitro ) বহুসংখ্যক গ্রাম পজিটিভ ও গ্রাম নেগেটিভ
অনুজীবের বিরুদ্ধে কার্যকরী । সেফট্রায়াক্সন অধিকাংশ বিটাল্যাকটামেজ এনজাইমের
উপস্থিতিতেও ( যেমন গ্রাম পজিটিভ ও গ্রাম নেগেটিভ ব্যাকটেরিয়ার পেনিসিলিনেজ ও
সেফালােসপােরিনেজ এনজাইম ) অধিক স্থায়ীভাবে কার্যকরী । সেফট্রায়াক্সন সাধারনত
নিম্নলিখিত অনুজীবের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সংক্রমনের ক্ষেত্রে কার্যকরীঃ 

গ্রাম পজেটিভ বায়ুজীবি অনুজীব 

স্টেফাইলোকক্কাস অরিয়াস স্ট্রেপটোকক্কাস এপিডার্মিস স্ট্রেপটোকক্কাস নিউমােনি
স্ট্রেপটোকক্কাস গ্রুপ এ ( স্ট্রেপটোকক্কাস পায়ােজেনস ) স্ট্রেপটোকক্কাস গ্রুপ
বি ( স্ট্রেপটোকক্কাস এগাল্যাকটিয়া ) স্ট্রেপটোকক্কাস ভাইরিডেনস স্ট্রেপটোকক্কাস
বােভিস বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ মেথিসিলিনের প্রতি অসংবেদনশীল ষ্টেফাইলােকক্কাস প্রজাতি
সেফট্রায়াক্সন সহ বিভিন্ন সেফালােসপােরিনের প্রতিও অসংবেদনশীল । অধিকাংশ
এন্টারোকক্কাই বর্গের ( স্ট্রেপটোকক্কাস ফেকালিস ) অনুজীবগুলােও সেফট্রায়াক্সনের
প্রতি অসংবেদনশীল।

 গ্রাম নেগেটিভ বায়ুজীবি অনুজীব 

অ্যারােমােনাস প্রজাতি 

অ্যালকালিজেনস প্রজাতি 

বেনামেলা ক্যাটারেলিস ( বিটাল্যাকটামেজ পজেটিভ ও নেগেটিভ )

 সিট্রোব্যাকটার প্রজাতি ( কিছু কিছু অনুজীব অসংবেদনশীল )

 এন্টারােব্যাকটার প্রজাতি ( কিছু কিছু সদস্য অসংবেদনশীল ) 

এসকেরিশিয়া কলাই 

হেমােফিলাস ডুক্রেই হেমােফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা ( পেনিসিলিনেজ উৎপাদনকারী অনুজীব গুলােও ) 

হেমােফিলাস প্যারাইনফ্লুয়েঞ্জা ক্লেবসিয়েলা প্রজাতি ( ক্লেবসিয়েলা নিউমােনি সহ ) 

মােরাক্সেল প্রজাতি 

মরগ্যানেল প্রজাতি 

নাইসেরিয়া গনােরিয়া ( পেনিসিলিনেজ প্রস্তুতকারী সদস্য সহ )

 নাইসেরিয়া মেনিনজাইটিডিস 

প্রেসিওমােনাস সিগেলােয়েডস

 প্রােটিয়াস মিরাবিলিস

 প্রােটিয়াস ভালগরিস 

প্রোভিডেনসিয়া প্রজাতি 

সিউডােমােনাস অ্যাজিনােসা ( কিছু কিছু সদস্য অসংবেদনশীল )

 সালমােনেলা প্রজাতি ( সালমােনেলা টাইফি সহ ) সেরাসিয়া প্রজাতি ( সেরাসিয়া মারসিসেনস ) 

সিগেলা প্রজাতি ভিবরিও প্রজাতি ( ভিবরিও কলেরা সহ )

 ইয়ারসিনিয়া প্রজাতি ( ইয়ারসিনিয়া এন্টারােকোলাইটিকা ) 

বিশেষ দ্রষ্টব্য : উপরােক্ত অনুজীবগুলাের বহু সদস্য একাধিক এন্টিবায়ােটিকের প্রতি

অসংবেদনশীল যেমন পেনিসিলিন ও সেফালােসপােরিনের পূর্ববর্তী জেনারেশন এবং

অ্যামাইনােগ্লাইকোসাইডস , কিন্তু সেফট্রায়াক্সনের প্রতি সংবেদনশীল । প্রাণীদেহ এবং

প্রাণীদেহের বাইরে পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে ট্রিপােনেমা প্যালিডাম সেফট্রায়াক্সনের

প্রতি সংবেদনশীল । ক্লিনিক্যাল পরীক্ষায় দেখা গেছে যে সেফট্রায়াক্সন প্রাইমারী ও

সেকেন্ডারী সিফিলিসের চিকিৎসায় ভাল ফল দেয় ।

অবায়ুজীবি অনুজীব 

 ব্যাকটেরােইডস্ প্রজাতি ( ব্যাকটেরােইডস ফ্রাজিলিসের কিছু কিছু সদস্যসহ )

 ক্লসট্রিডিয়াম প্রজাতি ( ক্লসট্রিডিয়াম ডিফিকালি বাদে )

 ফিউসােব্যাকটেরিয়াম প্রজাতি ( ফিউসােব্যাকটেরিয়াম মরটিফেরাম ও ফিউসােব্যাকটেরিয়াম

ভ্যারিয়াম বাদে ) 

পেপটোকক্কাস প্রজাতি পেপূটোস্ট্রেপটোকক্কাস প্রজাতি বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ বিটাল্যাকট্যজে

উৎপাদনকারী ব্যাকটেরােইডস প্রজাতীর অনেক সদস্যসমূহ ( উল্লেখযােগ্যভাবে ব্যাকটেরােইডস

ফ্রাজিলিস ) 

প্রতিরােধী । ন্যাশনাল কমিটি ফর ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরী স্ট্যান্ডার্ডস ( এনসিসিএলএস )

দ্বারা অনুমােদিত কিছু স্ট্যান্ডার্ড পদ্ধতি যেমন- ডিস্ক ডিফিউশন টেস্ট বা আগার অথবা

ব্ৰথ ডাইলিউশন টেস্টের মাধ্যমে সেফট্রায়ানের সংবেদনশীলতা নির্ধারণ করা যেতে পারে ।

এনসিসিএলএস সেফট্রায়াক্সনের জন্য নিম্নলিখিত ব্যাখ্যামুলক ব্রেকপয়েন্ট জারি করেছে ।

সংবেদনশীল পরিমিতরূপে প্রতিরােধী সংবেদনশীল ডাইলিউশন টেস্ট বাধাদানকারী ঘনত্ব

( মি.গ্রা / লি ) ১৬-৩২ ডিফিউশন টেস্ট ( ৩০ মি.গ্রা / সেফট্রায়াক্সন ডিস্ক ) প্রতি মি.মি. এ

ইনহিবিটরি জোন 

ডায়ামিটার 

অনুজীবগুলির কিছু সদস্যসমূহ সেফালােস্পােরিন শ্রেণির ডিস্কের প্রতিরােধী কিন্তু ইন –
ভিট্রো পরীক্ষায় দেখা যায় সেফট্রায়াক্সন এদের প্রতি সক্রিয় তাই অনুজীবগুলাে সেফট্রায়াক্সন
ডিস্ক দিয়ে পরীক্ষা করানাে উচিৎ । যেখানে এনসিসিএলএস এর নির্দেশগুলাে দৈনন্দিন
ব্যবহারের ক্ষেত্রে নয় , বিকল্প ডিআইএন , আইসিএস এবং অন্যান্য দ্বারা
অনুমােদিত মানসম্মত সংবেদনশীলতা ব্যাখ্যাকারী নির্দেশিকা ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রযােজ্য । 

ফার্মাকোকাইনেটিক 

সেফট্রায়াক্সনের ফার্মাকোকাইনেটিকস্ নন-লিনিয়ার এবং সমস্ত মৌলিক ফার্মাকোকাইনেটিকস্
প্যারামিটার সমূহ শুধুমাত্র নিষ্কাষন অর্ধায়ু বাদে মােট ঔষধের ঘনত্বের উপর ভিত্তি করে ডােজ
নির্ভরশীল । br ৬৪ ২১ ২০-১৪ 
শােষন মাত্রায় মাংসপেশীতে এবং শিরাপথে প্রবেশ করালে উভয়ের ক্ষেত্রে প্রজমা ঘনত্ব – সময়
বক্ররেখা সমান হয় এটা মাংসপেশীতে ১ গ্রা , প্রবেশের ২-৩ ঘন্টা পরে সর্বোচ্চ প্লাজমা ঘনত্ব
প্রতি লি . এ ৮১ মি.গ্রা . এ পৌছায় । সমান নির্দেশ করে সেফট্রায়াক্সন মাংসপেশীতে
প্রবেশ করালেও এর বায়ােএভেলএবিলিটি ১০০ % হয় । 

বন্টন

সেফট্রায়াক্সনের বন্টনের পরিমান ৭-১২ লি .। ১-২ গ্রা . মাত্রায় সেফট্রায়াক্সন শরীরে প্রবেশ

করালে চমৎকার টিস্যু এবং শরীরের তরলে প্রবেশের ক্ষমতা প্রদর্শন করে এবং সাধারণত

যে জীবানুগুলাে সংক্রমন ঘটায় যাহা শরীরে প্রবেশের ২৪ ঘন্টা পরে ৬০ টির বেশি টিস্যু

এবং শরীরে তরল যেমন শ্বসন , হৃদপিন্ড , বিলিয়ারি ট্রাক্ট , লিভার , টনসিল , মধ্যকর্ন , নাসাল

মিউকসা , হাড় , সেরিব্রোস্পাইনাল , প্রিউরাল , প্রস্টেটিক এবং সাইনােভিয়াল ফুইডে চিহ্নিত

করা যায় এদের ক্ষেত্রে সেফট্রায়াক্সনের ঘনত্ব মিনিমাম ইনহিবিটরি ঘনত্বের উপরে থাকে ।

ঘন্টা ধরে সংবেদনশীল অনুজীবগুলাের বিরুদ্ধে ব্যাকটেরিওসাইডাল ঘনত্ব বজায় থাকে । প্রতি

মি.গ্রা . / লিটারে ১ ঘ . সেফট্রিায়াক্সনের ঘনত্ব প্রােটিন বাইন্ডিং সেফট্রায়াক্সন অ্যালবুমিনের

সাথে রিভারসিবলি যুক্ত থাকে এবং ঘনত্ব বাড়ার সাথে অ্যালবুমিনের সাথে বাইন্ডিং কমতে থাকে।

  যেমন ৯৫ % বাইন্ডিং এ প্লাজমা ঘনত্ব ১০০ মি.গ্রা . / লি এবং ৮৫ % বাইন্ডিং এ প্লাজমা ঘনত্ব

৩০০ মি.গ্রা . / লি .। অ্যালবুমিনে পরিমান কম থাকায় মুক্ত সেফট্রায়াক্সনের পরিমান

তুলনামূলকভাবে প্লাজম থেকে ইন্টারস্টিশিয়াল তরলে বেশি থাকে । 

বিশেষ টিস্যুর মধ্যে অনুপ্রবেশ

 সেফট্রায়াক্সন নবজাতক , শিশু ও বাচ্চাদের প্রদাহী মেনিনজেস এ প্রবেশ করে ।

নবজাতক ও শিশুদের ক্ষেত্রে পর্যায়ক্রমে প্রতি কেজিতে ৫০-১০০ মি.গ্রা , করে শিরাপথে

প্রবেশ করালে ২৪ ঘন্টায় সেরিব্রোস্পাইনাল তরলে সেফট্রায়াক্সনের মাত্রা প্রতি লিটারে ১.৪

মি.গ্রা , এর বেশি হয় । শিরাপথে প্রবেশের ৪ ঘন্টার মধ্যে সিএসএফ এর সর্বোচ্চ মাত্রায়

পৌছায় এবং প্রতি লিটারে এভারেজ মূল্য হয় ১৮ মি.গ্রা .। ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিস

রােগীদের ক্ষেত্রে প্লাজমা ঘনত্বের ১৭ % এবং এসেপটিক মেনিনজাইটিস রােগীদের ক্ষেত্রে

৪ % গড় সিএসএফ লেবেল ।

 প্রাপ্তবয়স্ক মেনিনজাইটিস রােগীদের ক্ষেত্রে প্রতি কেজিতে ৫০ মি.গ্রা , করে প্রবেশ করালে

২-২৪ ঘন্টার মধ্যে সিএসএফ এ মিনিমাম ইনহিবিটরি মাত্রার থেকে বেশি হয় যাহা

মেনিনজাইটিস তৈরিকৃত জীবানুর বিরুদ্ধে কাজ করার জন্য থাকা প্রয়োজন ।

 বিপাক

 সেফট্রায়াক্সনের প্রনালীগতভাবে বিপাক হয়না কিন্তু গাট ফ্লোরার মাধ্যমে নিষ্ক্রিয় মেটাবােলাইট

এ পরিনত হয় । 

নিষ্কাশন 

 একজন প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ ব্যক্তির দেহে সেফট্রায়াক্সন নিষ্কাশনের অর্ধায়ু প্রায় ৮ ঘন্টা ।
৮ দিনের কম বয়সের নবজাতকের এবং ৭৫ বৎসরের অধিক বয়স্ক ব্যক্তির ক্ষেত্রে সেফট্রায়াক্সন
নিষ্কাশনের গড় অর্ধায়ু প্রায় উক্ত সময়ের দ্বিগুন থেকে তিন গুন । একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির ক্ষেত্রে ৫০-৬০ % সেফট্রায়াক্সন কিডনির মাধ্যমে এবং ৪০-৫০ % সেফট্রায়াক্সন পিত্তের মাধ্যমে অপরিবর্তিত অবস্থায় নিঃসরিত হয় । অন্ত্রের জীবাণু সেফট্রায়াক্সনকে অকার্যকর পদার্থে পরিনত করে । নবজাতকের ক্ষেত্রে
প্রয়ােগকৃত মাত্রার ৭০ % কিনির মাধ্যমে বর্জিত হয় । কিডনির গােলযােগ ও যকৃতের অকার্যকারিতার
রােগীদের ক্ষেত্রে সেফট্রায়াক্সন নিষ্কাশনের অর্ধায়ু সামান্য বেড়ে যায় । শুধুমাত্র কিডনির
গােলযােগের রােগীদের ক্ষেত্রে পিত্তের মাধ্যমে সেফট্রায়াক্সনের নিঃসরনের পরিমাণ বেড়ে
যায় ও শুধুমাত্র যুকুতের পালযােগের রােগীদের ক্ষেত্রে কিডনির মাধ্যমে সেফট্রায়াক্সনের
নিঃসরনের পরিমাণ বেড়ে যায়।

প্রােটিন বাইন্ডিং:

সেফট্রায়াক্সন পূর্বানুবৃত্তি ভাবে ( Reversibly ) অ্যালবুমিনের সাথে যুক্ত হয় । কিন্তু রক্ত রসে

সেফট্রায়াক্সনের ঘনত্ব বৃদ্ধির সাথে সাথে এর অ্যালবুমিনের যুক্ত হওয়ার পরিমান কমে যায় ।

যেমন  ঃ রক্ত রসে সেফট্রায়াক্সনের ঘনত্ব যখন ১০০ মিলিগ্রাম / লিটার ; ৯৫ ভাগ সেফট্রায়াক্সন

অ্যালবুমিনের সাথে যুক্ত হয় । কিন্তু যখন এই ঘনত্ব বেড়ে যায় ( ৩০০ মিলিগ্রাম / লিটার )

; ৮৫ ভাগ সেফট্রায়াক্সন অ্যালবুমিনের সাথে যুক্ত হয় । আন্ত্রিক রসে অ্যালবুমিনের পরিমান

কম থাকার ফলে অবমুক্ত সেফট্রায়াক্সনের ঘনত্ব রক্ত রসের ঘনত্বের চেয়ে বেশী থাকে । 

মেরুমজ্জারসে প্রবেশ

সেফট্রায়াক্সন নবজাতক ও শিশুদের প্রদাহযুক্ত মস্তিস্কঝিল্লী ভেদ করতে পারে ।
ব্যাকটেরিয়া ঘটিত মেনিনজাইটিসের ক্ষেত্রে সেফট্রায়াক্সন অভিস্রবনের পরিমান রক্তরসে
এর ঘনত্বের ১৭ ভাগ । সেফট্রায়াক্সনের এই ঘনত্ব অ্যাসেপ্টিক মেনিনজাইটিসের ক্ষেত্রে এর
ঘনত্বের চারগুন । শিরা পথে ৫০-১০০ মি.গ্রা . / কেজি মাত্রায় অরিসেফ প্রয়ােগের ২৪ ঘন্টা
পর মেরুমজ্জারসে সেফট্রায়াক্সনের ঘনত্ব পাওয়া যায় < ১.৪ মি.গ্রা . / লি .। প্রাপ্তবয়স্ক
মেনিনজাইটিসের রােগীদের ক্ষেত্রে ৫০ মি . গ্রা . / কেজি মাত্রায় অরিসেফ প্রয়ােগের
২-২৪ ঘন্টার মধ্যে মেরুমজ্জারসে সেফট্রায়াক্সনের যে ঘনত্ব পাওয়া যায় তা মেরুমজ্জা
প্রদাহ সৃষ্টিকারী অনুজীব ধ্বংসকারী ন্যূনতম প্রয়ােজনীয় ঘনত্বের ( Minimum Inhibitory
Concentration ) চেয়ে বহুগুণ বেশী ।

 

রােগ নিদের্শনা

অরিসেফ সংবেদনশীল জীবাণু ঘটিত নিম্নলিখিত সংক্রমনে নির্দেশিত ৪ সেপসিস

( জীবাণু দূষণ ) মেনিনজাইটিস আন্ত্রিক সংক্রমন উদরাবরক ঝিল্লী প্রদাহ , পিত্তনালী ও

পরিপাকনালীর সংক্রমন শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমন বিশেষত নিউমােনিয়া এবং নাক কান ও

গলার সংক্রমন প্রজনন তন্ত্রের সংক্রমন ( গনােরিয়া সহ ) অস্থি , অস্থিসন্ধি , নরমকলা ,

চর্ম ও ক্ষতের সংক্রমন কম রােগ প্রতিরােধ ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের সংক্রমন কিডনি

ও মুত্রনালীর সংক্রমন অস্ত্রোপচারকালীন সংক্রমন প্রতিরােধ 

প্রয়ােগমাত্রা ও প্রয়ােগবিধি :

প্রবেশের প্রক্রিয়া : শিরাপথে অথবা মাংসপেশীতে ১২ বৎসরের অধিক ( শিশু ) এবং প্রাপ্ত

বয়স্কদের ক্ষেত্রেঃ ১-২ গ্রাম অরিসেফ® দৈনিক ( প্রতি ২৪ ঘন্টা অন্তর ) ১ বার প্রয়ােগ

করতে হবে । প্রচন্ড সংক্রমন অথবা মােটামুটি সংবেদনশীল জীবাণু ঘটিত সংক্রমনের

ক্ষেত্রে প্রয়ােগ মাত্রা ৪ গ্রাম পর্যন্ত বাড়ানাে যেতে পারে যা দৈনিক একবার প্রয়ােগ করতে

হবে । বয়স্ক রােগীদের ক্ষেত্রে ৪ বয়স্ক রােগীদের ক্ষেত্রে প্রাপ্তবয়স্কদের অনুরূপ মাত্রা

প্রয়ােগ করতে হবে । গর্ভকালীন ব্যবহারঃ প্রেগনেনসি ক্যাটাগরি ‘ বি ‘

 চিকিত্সর মেয়াদকাল

অরিসেফ দ্বারা চিকিৎসার মেয়াদ রােগের স্থিতিকালের উপর নির্ভর করে । অন্যান্য
এন্টিবায়ােটিক দ্বারা চিকিৎসার মতই জ্বর কমে যাওয়ার বা সংক্রমন সৃষ্টিকারী
ব্যাকটেরিয়ার নির্মূল লক্ষণ প্রকাশ পাওয়ার পর , ৪৮-৭২ ঘন্টা পর্যন্ত অরিসেফ প্রয়ােগ
বজায় রাখতে হবে।

 মিশ্র চিকিৎসা :

পরীক্ষার মাধ্যমে দেখা গেছে যে সেফট্রায়াক্সন এবং অ্যামাইনােগ্লাইকোসাইড
গ্রামনেগেটিভ ব্যাসিলির উপর একে অপরের ক্রিয়া বাড়িয়ে দেয় । তবে এ ধরনের
পারস্পরিক ক্রিয়া ক্ষমতা বৃদ্ধি সবসময় নাও হতে পারে । এই ধরনের পারস্পরিক ক্রিয়া
বৃদ্ধি সিউডােমােনাস অরুজিনােসা দ্বারা সৃষ্ট তীব্র , জীবননাশক সংক্রমনের ক্ষেত্রে
বিবেচনা করতে হবে । কাঠামােগত অসঙ্গতির কারনে অরিসেফ ও অ্যামাইনােগ্লাইকোসাইড
অবশ্যই আলাদাভাবে নির্দেশিত মাত্রায় প্রয়ােগ করতে হবে ।

 বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে প্রয়ােগ মাত্রা এবং প্রয়ােগ বিধি :

 মেনিনজাইটিস : শিশুদের ব্যাকটেরিয়া ঘটিত মেনিনজাইটিসের চিকিৎসা দৈনিক

একবার ১০০ মি.গ্রা . / কেজি ( ৪ গ্রামের বেশী হওয়া উচিত নয় ) মাত্রা দিয়ে শুরু

করতে হবে । রােগসৃষ্টিকারী অনুজীব ও অরিসেফের প্রতি এর সংবেদনশীলতা নির্ণয়ের

পর ওষুধ প্রয়ােগের মাত্রা কমানাে যেতে পারে । বিভিন্ন অনুজীব দ্বারা ঘটিত মেনিনজাইটিসের

ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত চিকিৎসা মেয়াদ উকৃষ্ট ফল দেয় ? নাইসেরিয়া মেনিনজাইটিডিস

হেমােফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা ৬ দিন স্ট্রেপটোকক্কাস নিউমােনি সংবেদনশীল এন্টারােব্যাকটেরিয়েসি

১০-১৪ দিন । গনােরিয়া ও গনােরিয়া চিকিৎসায় ( পেনিসিলিনেজ ও ননপেনিসিলিনেজ উৎপন্নকারী

জীবানু দ্বারা সৃষ্ট ) অরিসেফের ২৫০ মি . গ্রা . একক মাত্রা পেশীপথে প্রয়ােগ করতে হবে ।

অস্ত্রোপচার কালীন সংক্রমন প্রতিরােধ ও অস্ত্রোপচারকালীন সংক্রমনের সম্ভাব্যতার উপর

ভিত্তি করে ১-২ গ্রাম অরিসেফ অস্ত্রোপচারের ৩০-৯০ মিনিট পূর্বে শিরাপথে প্রয়ােগ করতে হবে ।

কলােরেকটাল অস্ত্রোপচারের ক্ষেত্রে অরিসেফ ও ৫ – নাইট্রোইমিডাজোল এর ক্রমান্বয়ে

প্রয়ােগ সংক্রমন প্রতিরােধে কার্যকর । কিডনি ও যকৃতের গােলযােগ ও কিডনির গােলযােগের

রােগীদের ক্ষেত্রে যদি যকৃতের কার্যকারিতা ঠিক থাকে তবে অরিসেফের মাত্রা কমানাের কোন

প্রয়ােজন নেই । প্রিটারমিনাল রেনাল ফেইল্যর এর ক্ষেত্রে ( ক্রিয়েটিনিন

নিঃসরন < ১০ মি.লি. / মিনিট ) অরিসেফের দৈনিক মাত্রা ২ গ্রামের বেশী হওয়া

উচিত নয় । যকৃতের কার্যহীনতার রােগীদের ক্ষেত্রে যদি কিডনির কার্যকারিতা ঠিক

থাকে তবে অরিসেফ প্রয়ােগের মাত্রা কমানাের কোন প্রয়ােজন নেই । যকৃত ও কিডনির

তীব্র অকার্যকারিতার ক্ষেত্রে রক্তরসে সেফট্রায়াক্সনের ঘনতু নিয়মিত ভাবে নির্ণয় করতে হবে ।

যে । সকল রােগী রক্তের ডায়ালাইসিস করান তাদের ক্ষেত্রে ডায়ালাইসিস এর পর কোন

সম্পূরক মাত্রা দেয়ার প্রয়ােজন নেই । তাদের ক্ষেত্রে যেহেতু যকৃত ও কিড়নি দ্বারা বর্জ্য

নিঃসরনের পরিমান কমে যায় সে ক্ষেত্রে অরিসেফ প্রয়ােগের মাত্রা পূনঃ নির্ধারনের জন্য

রক্তরসে এর ঘনত্ব নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষন করতে হবে ।

প্রয়ােগবিধি :-নির্দেশিত দ্রাবকে অরিসেফের দ্রবন পারিপার্শ্বিক তাপমাত্রায় ৬ ঘন্টা

( অথবা ৫ ° সে . তাপমাত্রায় ২৪ ঘন্টা ) স্থায়ী হয় । সাধারণ ক্ষেত্রে অরিসেফের দ্রবন

তৈরীর সঙ্গে সঙ্গেই ব্যবহার করা উচিত । ঘনত্ব ও সংরক্ষনের সময়কালের উপর ভিত্তিকরে

অরিসেফের বর্ণ হালকা হলুদ থেকে Amber এ পরিবর্তিত হতে পারে । অরিসেফের সক্রিয়

উপাদানের এই বর্ণ পরিবর্তন এর কার্যকারিতা ও রােগীর সহনীয়তার উপর কোন বিশেষ

প্রভাব ফেলে না।

ইন্ট্রামাসকুলার ইনজেশন :-

 

২৫০ মি.গ্রা , অথবা ৫০০ মি.গ্রা . অরিসেফ ২ মিলিলিটার এবং ১ গ্রাম অরিসেফ®
৩.৫ মিলিলিটার ১ % লিডােকেইনে দ্রবীভূত করতে হবে । অরিসেফের দ্রবনটি গভীর
মাংসপেশীতে প্রয়ােগ করতে হবে । লিডােকেইনে অরিসেফের এই দ্রবন কখনােই শিরাপথে
প্রয়ােগ করা যাবে না ।

 ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন

শিরাপথে প্রয়ােগের জন্য ২৫০ মি.গ্রা . অথবা ৫০০ মি.গ্রা . অরিসেফ® ৫ মিলিলিটার
এবং ১ গ্রাম অরিসেফ® ১০ মিলিলিটার ষ্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশনে দ্রবীভূত করে
২-৪ মিনিট ধরে প্রয়ােগ করতে হবে । ঔষধটি রােগীর শরীরে প্রবেশের পূর্বে টেস্ট ডােজ
দিয়ে সহনীয়তা পরীক্ষা করুন । 

ইন্ট্রাভেনাস ইনফিউশন

অরিসেফ ইনফিউশন কমপক্ষে ৩০ মিনিট ধরে প্রয়ােগ করতে হবে । ইনফিউশন হিসাবে

প্রয়ােগের জন্য ২ গ্রাম অরিসেফ ক্যালসিয়াম মুক্ত নিম্নলিখিত ইনফিউশন দ্রবনের

যে কোন একটির ৪০ মিলিলিটার এ দ্রবীভূত করতে হবে । 

০.৯ % সােডিয়াম ক্লোরাইড দ্রবন । 

সােডিয়াম ক্লোরাইড ০.৪৫ % + ডেক্সট্রোজ ২.৫ % দ্রবন 

ডেক্সট্রোজ ৫ % দ্রবন

 ডেক্সট্রোজ ১০ % দ্রবন 

লেভুলােজ ৫ % দ্রবন

 ডেক্সট্রোজে ৬ % ডেক্সট্রানের দ্রবন

 স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন উপরােক্ত দ্রবনগুলাে ছাড়া অন্য কোন দ্রবনে অরিসেফ

দ্রবীভূত করা উচিত নয় এবং অন্য কোন অনুজীবরােধক ওষুধের সাথে মেশানাে উচিত

নয় । কারন সে ক্ষেত্রে অবাঞ্ছিত প্রতিক্রিয়া হতে পারে।

স্থায়িত্ব

 

এই ওষুধটি প্যাকেটের নীচে নির্দেশিত মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে ব্যবহার করা উচিত নয়
। তৈরিকৃত দ্রবন কক্ষ তাপমাত্রায় ৬ ঘন্টা এবং রেফ্রিজারেটরে ২-৮ সে . তাপমাত্রায়
সংরক্ষণ করা হলে ২৪ ঘন্টা কার্যকারিতা প্রদর্শন করে ।

প্রতি নির্দেশনা :

 

সেফালােসপােরিন এন্টিবায়ােটিকের প্রতি অতিসংবেদনশীল রােগীদের অরিসেফ

প্রয়ােগ করা উচিত নয় । পেনিসিলিনের প্রতি অতিসংবেদনশীল রােগীদের ক্ষেত্রে Allergic

cross – reaction এর সম্ভাব্যতার কথা মনে ! | রাখতে হবে । যদিও প্রিক্লিনিক্যাল পরীক্ষায়

অরিসেফের কোন মিউটাজেনিক ও টেরাটোজেনিক প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি তথাপিও

অরিসেষ্ণ গর্ভাবস্থায় ব্যবহার করা উচিত নয় ( বিশেষত গর্ভাবস্থায় প্রথম তিনমাসে )

যদি না অন্য কোন উপায় থাকে | 

সতর্কতাঃ 

ORICEF-INJECTION-how to injection bangla:-অন্যান্য সেফালোসপােরিন

এন্টিবায়ােটিকের ন্যায় অরিসেফ ব্যবহারের ফলে অ্যানাফাইলেকট্রিক শক হতে পারে ।

এনাফাইলেকটিক শকের ক্ষেত্রে এপিনেরিন ও গুকোকটিকয়েড ক্রমান্বয়ে শিরাপথে প্রয়ােগ

করতে হবে । কিছু কিছু বিরল ক্ষেত্রে অরিসেফটি ব্যবহারকারীদের পিত্তথলির সনােগ্রাম

করে “ Shadows Suggesting Sludge ” এর উপস্থিতি পাওয়া গেছে । কিন্ত উক্ত অবস্থা

অরিসেফ দ্বারা চিকিৎসা বন্ধ করে দেয়ার পর বা অরিসেফ দ্বারা চিকিৎসা শেষ হওয়ার পর

স্বাভাবিক হয়ে যায় । উক্ত অবস্থার সাথে যদি ব্যথা হয় তবে কনজারভেটিভ সার্জিক্যাল

ম্যানেজমেন্ট প্রয়ােজন হবে । দেহের বাইরের ( In – vitro ) পরীক্ষায় দেখা

গেছে যে অন্যান্য সেফালােসপােরিনের ন্যায় সেফট্রায়াক্সন সেরামে অ্যালবুমিন থেকে

বিলিরুবিন বিযুক্ত করে ।। হাইপার – বিলিরুবিনেমিক নবজাতকদের ক্ষেত্রে

বিশেষ করে অকালিক নবজাতকদের ক্ষেত্রে অরিসেফ ) ব্যবহারের সময় বিশেষ

সতর্কতা অবলম্বন করতে আনেক দিন ধরে অরিসেফ দ্বারা চিকিৎসার করানো

হয় তখন সাধারণ ভাবে রক্তরসে অরিসেফ ঘনত্ব সাধারণ আকারে হয়।

অবাঞ্ছিত প্রতিক্রিয়া

 অরিসেফ সাধারনত সুসহনীয় । অরিসেফ ব্যবহারের ফলে নিম্নলিখিত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
দেখা যায় যা অস্থায়ী এবং ঔষধ ব্যবহার বন্ধ করবার পর এমনিতেই ভাল হয়ে যায় । 

সিস্টেমিক পাশ্বপ্রতিক্রিয়া 

নিউরােসাইকিয়াট্রিক লক্ষণ যেমন খিচুনী আন্ত্রিক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ও ( ০.২ % ব্যবহারকারীদের
ক্ষেত্রে ) পাতলা পায়খানা , ডায়রিয়া , বমি বমি ভাব , বমি , স্টোমাটাইটিস এবং গ্রোসাইটিস ।
রক্তে দেখা যায় এমন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সমূহ হচ্ছে ( ২ % ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে )
ইউসিনােফিলিয়া , লিউকোপেনিয়া , থানুলােসাইটোপেনিয়া , হিমােলাইটিক এনিমিয়া এবং
থ্রম্বােসাইটোপেনিয়া । ত্বকের প্রতিক্রিয়া = ( ১ % ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে । এক্সানথেমা ,
চুলকানি , প্ররাইটিস , আমবাত , শােথ , ইরাইথিম মালটি ফরমি । 

অন্যান্য বিরল পাম্প্রতিক্রিয়া 

মাথা ব্যথা , ঘুমঘুম ভাব , যকৃত এনজাইম বৃদ্ধি , পিত্তথলির স্নাজ , মুত্র স্বল্পতা , রক্তে সেরাম
ক্রিয়েটিনিন বৃদ্ধি , প্রজননতন্ত্রের ছত্রাক সংক্রমন , এনাফাইলেকটিক ও এনাফাইলেকটয়েড
রিয়্যাকশন । বিলুপ পাশ্বপ্রতিক্রিয়া হিসাবে সিউডােমেমব্রেনাস এন্টারােকোলাইটিস ও
রক্তের জমাট বাধন প্রক্রিয়ার ব্যাঘাত | লেখা । প্রায় পাশ্ব প্রতিক্রিয়া বিলনে শিবপথে প্রয়োগের
পর শিনা প্রদাহ দেখা যায় । কিন্তু আস্তে আস্তে ২-৪ মিনিট ধরে প্রয়োগের মাধ্যমে শিরা
অপমান আ খাৰৰ । পেশিতে গদ্যোগের ক্ষেত্রে লিডােকেইন দ্রবন সহ প্রয়ােগ না করে
পেশীতে ব্যথা সৃষ্টি হয় ।

গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যদানকালে ব্যবহার 

প্রেগন্যান্সি ক্যাটাগরি “ বি ” । সেফট্রায়াক্সন প্রসেন্টা বাধা অতিক্রম করতে পারে এবং কম

মাত্রায় মাতৃদুগ্ধের সহিত বের হয় ।

 শিশু এবং কিশােরদের ক্ষেত্রে

নবজাতক এবং ১২ বৎসরের কম বয়স্ক শিশুদের ক্ষেত্রেঃ নবজাতক ( ২ সপ্তাহ বয়স পর্যন্ত)। 

২০-৫০ মি.গ্রা . / কেজি মাত্রায় দৈনিক একবার প্রয়োগ করতে হবে । প্রয়ােগ মাত্রা কখনােই

৫০ মি.গ্রা . / কেজি এর বেশী হওয়া উচিত নয় । মাত্রা নির্ধারনের ক্ষেত্রে নবজাতকের

দেহে এনজাইমতন্ত্রের অপরিপক্কতার কথা মনে রাখতে হবে । অরিসেফের মাত্রা নির্ধারনের

ক্ষেত্রে শিশুর জন্য কাল ( Premature birth and Infant born at term ) ধর্তব্য নয় । 

শিশু ( ১৫ দিন -১২ বৎসর ) :-

 

২০-৮০ মি.গ্রা . / কেজি অরিসেফ দৈনিক একবার প্রয়ােগ করতে হবে । ৫০ কেজি এর
চেয়ে বেশী ওজনের শিশুদের ক্ষেত্রে অরিসেফ প্রয়ােগের মাত্রা প্রাপ্তবয়স্কদের অনুরূপ
হবে । শিরাপথে প্রয়ােগের সময় ৫০ মি.গ্রা .যেমনঃসাধারণ ওজন, শারীক বৃদ্বি
কমানো জন্য সাধারণ আকারে কমপক্ষে ৩০মিনিট ব্যবহার করতে হবে।

 

অন্যান্য ঔষধের সাথে বিক্রিয়া

 

ক ) ঔষধের সাথে : নির্দিষ্ট মাত্রার চেয়ে অনেকবেশী মাত্রায় অরিসেফ ও

শক্তিশালী ডাইউরেটিক ( ফিউরােসেমাইড ) ক্রমান্বয়ে প্রয়ােগ করে দেখা গেছে যে

কিডনির কার্যকারিতার কোন ব্যাঘাত ঘটে না । পরীক্ষার মাধ্যমে

দেখা গেছে যে অরিসেফ অ্যামাইনােগ্লাইকোসাইডের কিনির উপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া ।

বাড়িয়ে দেয়না । ডাইসালফিরাম গ্রহনের পর অ্যালকোহল সেবনের ফলে যে প্রতিক্রিয়া

দেখা দেয় অরিসেফের ক্ষেত্রে তা দেখা যায় না । সেফট্রায়াক্সনে , কিছু কিছু সেফালােসপােরিনের

মত ইথানলের প্রতি অসহনীয়তা ও রক্ত ক্ষরণ সম্বন্ধীয় সমস্যা সৃষ্টিকারী N- মিথাইল

থায়ােটেট্রাজোল গ্রুপ থাকে না । প্রবেনিসিড় অরিসেফ নিঃসরনে কোন ব্যাঘাত

ঘটায় না । 

খ ) খাবারের সাথে নেই । 

মাত্রাতিরিক্ত 

অপরিমিত মাত্রার ক্ষেত্রে ওষুধের মাত্রা হেমােডায়ালাইসিস অথবা পেরিটোনিয়াল

ডায়ালাইসিসের মাধ্যমে কমানাে যায় না । এর জন্য কোন নির্দিষ্ট এন্টিডট নাই ।

অপরিমিত মাত্রার ক্ষেত্রে চিকিত্স সিমটোমেটিকভাবে দিতে হবে । 

সংরক্ষন 

 ৩০ ° সে . এর কম তাপমাত্রায় সংরক্ষন করুন ।

 সরবরাহ
অরিসেফস্ট ইন্ট্রামাসকুলার ইনজেকশন 

২৫০ মি.গ্রা , ইন্ট্রামাসকুলার ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম
ইউ এসপি ২৯৮.২৩ মি.গ্রা . সমতুল্য ২৫০ মি.গ্রা , শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি
এ্যাম্পুলে ২ মি.লি. ১ % লিডােকেইন দ্রবন আছে । এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল
ডিসপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) , একটি বেবী নিড়ল , একটি এলকোহল প্যাড
এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । ৫০০ মি.গ্রা . 

ইন্ট্রামাসকুলার ইনজেকশন : 

প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ৫৯৬.৪৬ মি.গ্রা , সমতুল্য ৫০০ মি.গ্রা .

শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ২ মি.লি. ১ % লিডােকেইন দ্রবন আছে ।

এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) , একটি বেবী নিড়ল ,

একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । ১ গ্রাম ইন্ট্রামাসকুলার

ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ১.১৯৩ গ্রাম

সমতুল্য ১ গ্রাম শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ৩.৫ মি.লি. ১ % লিডােকেইন

দ্রবন আছে । এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) ,

একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । 

অরিসেফ % ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন  ঃ ২৫০ মি.গ্রা . ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি

ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ২৯৮.২৩ মিগ্রা , সমতুল্য ২৫০ মি.গ্রা .

শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ৫ মি.লি. স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন

আছে । এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিসপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) ,

একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । ৫০০ মি.গ্রা . ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ৫৯৬.৪৬ মি.গ্রা . সমতুল্য ৫০০ মি.গ্রা . শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ৫ মি.লি , স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন আছে । এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিসপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) , একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট

এইড় ব্যান্ডেজ । ১ গ্রাম ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন

সােডিয়াম ইউএসপি ১.১৯৩ গ্রাম সমতুল্য ১ গ্রাম শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি

এ্যাম্পুলে ১০ মি.লি , স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন আছে । এতে

আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিসপােজেবল সিরিঞ্জ ( ১০ মি.লি. ) , একটি বাটারফ্লাই

নিড়ল , একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । অরিসেফ ইন্ট্রাভেনাস

ইনফিউশন ও ২ গ্রাম ইন্ট্রাভেনাস ইনফিউশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম

ইউএসপি ২.৩৮৬ গ্রাম সমতুল্য ২ গ্রাম শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ২০ মি.লি.

স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন আছে । এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিসৃপােজেবল

সিরিঞ্জ ( ২০ মি.লি. ) , একটি বাটারফ্লাই নিড়ল , একটি এলকোহল প্যাড এবং

একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । 

দ্রষ্টব্য :-

 how to calcium injection: যে কোন ওষুধ নির্দেশিত নিয়ম অনুযায়ী

সেবন করা উচিত । নিদের্শিত নিয়ম অনুযায়ী সেবন না করলে দেহে বিরূপ

প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে । – চিকিৎসকের নির্দেশিকা অনুসারে ওষুধ সগ্রহ

করুন এবং তার উপদেশ ভাল ভাবে পালন করুন । ওষুধ সংগ্রহের সময় ফার্মাসিস্টের কাছ থেকে এর ব্যবহার বিধি ভালভাবে জেনে নিন । –ডাক্তার এবং ফার্মাসিস্ট ওষুধের উপকারিতা ও

অপকারিতা সম্পর্কে ভালভাবে জ্ঞাত । তাদের পরামর্শ গ্রহন করুন । – চিকিৎসক

কর্তৃক নির্দেশিত চিকিৎসার মেয়াদকাল শেষ হওয়ার পূর্বে কখনােই ওষুধ সেবন বন্ধ

করবেন না । – চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কখনােই তার দেয়া পর্বের নির্দেশিকা

পুনরায় ব্যবহার করবেন না । 

বিস্তারিত তথ্যের জন্য ইংরেজী অংশ পড়ুন।

how to live injection:-৩০ সে , এর কম তাপমাত্রায় সংরক্ষন করুন 7 । 2.1 র 5

সরবরাহ ৪ অরিসেফস্ট ইন্ট্রামাসকুলার ইনজেকশন ৪ ২৫০ মি.গ্রা , ইন্ট্রামাসকুলার

ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউ এসপি ২৯৮.২৩ মি.গ্রা .

সমতুল্য ২৫০ মি.গ্রা , শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ২ মি.লি. ১ % লিডােকেইন

দ্রবন আছে । এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিসপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) ,

একটি বেবী নিড়ল , একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ ।

৫০০ মি.গ্রা . ইনজেকশন ইন্ট্রামাসকুলার -একএকটি ভায়াল দ্বারা গুলো প্রতিটি

সেফট্রায়াক্রন সোডিয়াম দ্বারা ইউএসপি৫৯৬.৪৬মি.গ্রা  সাধারণ ৫০০মিগ্রা .

শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ২ মি.লি. ১ % লিডােকেইন দ্রবন আছে ।

এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) , একটি বেবী

নিড়ল , একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । ১ গ্রাম ইন্ট্রামাসকুলার

ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ১.১৯৩ গ্রাম সমতুল্য ১

গ্রাম শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ৩.৫ মি.লি. ১ % লিডােকেইন দ্রবন আছে ।

এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) , একটি

এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । অরিসেফ % ইন্ট্রাভেনাস

ইনজেকশন  ঃ ২৫০ মি.গ্রা . ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন

সােডিয়াম ইউএসপি ২৯৮.২৩ মিগ্রা , সমতুল্য ২৫০ মি.গ্রা . শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি

এ্যাম্পুলে ৫ মি.লি. স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন আছে । এতে আরাে রয়েছে

একটি স্টেরাইল ডিসপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) , একটি এলকোহল প্যাড এবং

একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । ৫০০ মি.গ্রা . ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে

সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ৫৯৬.৪৬ মি.গ্রা . সমতুল্য ৫০০ মি.গ্রা . শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন

এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ৫ মি.লি , স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন আছে । এতে আরাে রয়েছে

একটি স্টেরাইল ডিসপােজেবল সিরিঞ্জ ( ৫ মি.লি. ) , একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট

এইড় ব্যান্ডেজ । ১ গ্রাম ইন্ট্রাভেনাস ইনজেকশন : প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম

ইউএসপি ১.১৯৩ গ্রাম সমতুল্য ১ গ্রাম শুষ্ক সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ১০ মি.লি ,

স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন আছে । এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিসপােজেবল

সিরিঞ্জ ( ১০ মি.লি. ) , একটি বাটারফ্লাই নিড়ল , একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট

এইড ব্যান্ডেজ । অরিসেফ ইন্ট্রাভেনাস ইনফিউশন ও ২ গ্রাম ইন্ট্রাভেনাস ইনফিউশন :

প্রতিটি ভায়ালে সেফট্রায়াক্সন সােডিয়াম ইউএসপি ২.৩৮৬ গ্রাম সমতুল্য ২ গ্রাম শুষ্ক

সেফট্রায়াক্সন এবং প্রতিটি এ্যাম্পুলে ২০ মি.লি. স্টেরাইল ওয়াটার ফর ইনজেকশন আছে ।

এতে আরাে রয়েছে একটি স্টেরাইল ডিসৃপােজেবল সিরিঞ্জ ( ২০ মি.লি. ) , একটি বাটারফ্লাই

নিড়ল , একটি এলকোহল প্যাড এবং একটি ফাস্ট এইড ব্যান্ডেজ । দ্রষ্টব্য  ঃ – যে কোন ওষুধ

নির্দেশিত নিয়ম অনুযায়ী সেবন করা উচিত । নিদের্শিত নিয়ম অনুযায়ী সেবন না করলে দেহে

বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে । – চিকিৎসকের নির্দেশিকা অনুসারে ওষুধ সগ্রহ করুন

এবং তার উপদেশ ভাল ভাবে পালন করুন । ওষুধ সংগ্রহের সময় ফার্মাসিস্টের কাছ থেকে

এর ব্যবহার বিধি ভালভাবে জেনে নিন । –ডাক্তার এবং ফার্মাসিস্ট ওষুধের উপকারিতা ও

অপকারিতা সম্পর্কে ভালভাবে জ্ঞাত । তাদের পরামর্শ গ্রহন করুন । – চিকিৎসক কর্তৃক

নির্দেশিত চিকিৎসার মেয়াদকাল শেষ হওয়ার পূর্বে কখনােই ওষুধ সেবন বন্ধ করবেন

না । – চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কখনােই তার দেয়া পর্বের নির্দেশিকা পুনরায় ব্যবহার

করবেন না । বিস্তারিত তথ্যের জন্য ইংরেজী অংশ পড়ুন । CLICK HEARE